মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

জলঢাকার বিশেষ অর্জন

এক দিনের সরকারি কর্মকর্তা! বিষয়টি অবাক করার মতো। কিন্তু আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই, বাস্তবতায় নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার শিশু অধিকারকর্মী আর্জিনা বেগম (২৪) ওই এক দিনে জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার প্রতিকী ভূমিকা পালন করেছেন।

দিনটি ছিল গতকাল বুধবার। ওইদিন আর্জিনা বেগম সকালে উপস্থিত হন জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রাফিয়া বেগমের দপ্তরে। এরপর তার কাছ থেকে দায়িত্ব বুঝে নিয়ে সহকর্মীদের সঙ্গে পরিচিত হয়ে মতবিনিময় করেন। দিনব্যাপী জলঢাকা ও ডিমলা উপজেলার বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেন।

আর্জিনা জানান, জলঢাকা ও ডিমলা উপজেলার মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তার দপ্তর পরিদর্শন করেছেন তিনি। এ সময় জলঢাকা উপজেলার ডাউয়াবাড়ি ইউনিয়ন, ডিমলা সদর ইউনিয়ন ও ডোমার উপজেলার হরিরণচড়া এবং পাঙ্গামুটুকপুর ইউনিয়নে ভিজিডি প্রশিক্ষণ ও চাল বিতরণ কার্যক্রম, ডিমলা উপজেলার ছাতনাই বালাপাড়া গ্রামীণ নারী উন্নয়ন সমিতি ও জলঢাকা উপজেলার প্রত্যাশা নারীকল্যাণ সমিতির কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। পরে বিকেল ৫টার পর জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার কাছে দায়িত্ব হস্তান্তর করেন। এসব পরিদর্শনে জেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা রাফিয়া বেগমের সঙ্গে  ছিলেন।

জেলা পর্যায়ে সরকারি এমন একটি দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে আর্জিনা এখন স্বপ্ন দেখছেন বড় হওয়ার। মানুষের কল্যাণে সমাজের নেতৃত্ব দিয়ে নিজেকে আরো বিকশিত করার। আর্জিনা বেগম বলেন, "এক দিনের জন্য হলেও জেলার মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার প্রতীকী দায়িত্ব পালন করতে পেরে আমি ভীষণ খুশি। এখন যোগ্যতা অর্জন  করে এমন একটি বড় পদে আসীন হওয়ার স্বপ্ন দেখছি। ভালোভাবে পড়ালেখা করে আমি জীবনে অনেক বড় হতে চাই।"

আর্জিনা জানায়, জেলার জলঢাকা উপজেলার রথের বাজার গ্রামের ক্ষুদ্র কৃষক পরিবারের জামাল উদ্দিন ও আমেনা বেগম দম্পতির মেয়ে মেয়ে সে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে নীলফামারী সরকারি কলেজ থেকে এ বছর স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছে। নিজের অনুভূতি থেকে ২০০৪ সাল থেকে নিজ এলাকায় স্বাস্থ্য, শিক্ষা, শিশু অধিকার বিষয়ে নানা সচেতনতামূলক কাজে অংশ নেন। কাজের স্বীকৃতিতে ২০১৩ সালের মে মাসে নোবেল পুরস্কার প্রদানকারী দেশ নরওয়েতে অনুষ্ঠিত অসলো ফ্রিডম ফাউন্ডেশন আয়োজিত সম্মেলনে যোগদান করেন তিনি। নারী ও শিশু শিক্ষা প্রসারে ভূমিকায় ইউনিয়ন পরিষদসহ বিভিন্ন সংগঠনের সম্মাননা অর্জন করেছেন। এসব কাজের জন্য প্লান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ও উদয়াঙ্কুর সেবা সংস্থা সহযোগিতা করে আসছে।

এ ব্যাপারে প্লান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের রংপুর বিভাগীয় ব্যবস্থাপক মো. আব্দুল কুদ্দুছ জানান, ১১ অক্টোর আন্তর্জাতিক কন্যা  দিবস। এ উপলক্ষে ২০১৬ সাল থেকে প্লান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ গার্লস টেক ওভার কর্মসূচির আয়োজন করে আসছে। এ কর্মসূচির মাধ্যমে একজন কিশোরী বা যুব নারীকে নেতৃত্ব প্রদানকারীর ভূমিকা পালন করতে সহায়তা করা হয়, যাতে তার মধ্যে বড় হওয়ার, ভালো কিছু করার স্বপ্ন তৈরি হয়, আত্মবিশ্বাস বাড়ে।

কর্মসূচির আওতায় দেশের রংপুর বিভাগের দিনাজপুর, নীলফামারী, লালমনিরহাট ও রংপুর জেলায় পর্যায়ে সরকারি কর্মকর্তা, বিভিন্ন উপজেলার ইউএনও, ইউপি চেয়ারম্যান ও নিজ সংস্থার প্রধানের দায়িত্ব পালনে সহায়তা করা হচ্ছে আর্জিনার মতো ১৫ জনকে। তিনি বলেন, "এ কাজে বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সহযোগিতা পাচ্ছি। তারা আন্তরিকতার সঙ্গে আর্জিনাদেরকে গ্রহণ করছেন।"

জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রাফিয়া বেগম বলেন, "আর্জিনা প্রতীকী হিসেবে জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করেছেন। ওই এক দিনে তিনি আমার সঙ্গে থেকে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিদর্শন করেছেন। এতে তার মধ্যে আত্মবিশ্বাস তৈরি হয়েছে। দায়িত্ব পালনে নারীদের এগিয়ে আসার জন্য এটি একটি পজেটিভ পদক্ষেপ।"  

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter